আট অলিম্পিকে খেলে গার্সিয়ার ইতিহাস

Share Now..

অ্যাথলেট হিসেবে খুব একটা নামডাক নেই স্পেনের হেসুস আনহেল গার্সিয়ার। অলিম্পিকেও পাননি পদকের স্বাদ। কিন্তু ক্যারিয়ারের শেষ বেলায় এসে ঠিকই গড়লেন ইতিহাস। ১৯৯২ সালের বার্সেলোনা অলিম্পিক থেকে এবারের টোকিও অলিম্পিকসহ টানা আট আসরে ৫০ কিলোমিটার হাঁটা ইভেন্টে নিয়মিত মুখ ছিলেন এই ৫১ বছর বয়সি স্প্যানিশ। তার থেকে বেশি অলিম্পিক খেলার অভিজ্ঞতা নেই অ্যাথলেটিকসের কোনো অ্যাথলেটের।

আটবার অলিম্পিকে অংশ নিয়েও পদক না পাওয়ার আক্ষেপ ঠিকই আছে গার্সিয়ার। ২০০৮ অলিম্পিকে চতুর্থ হওয়াটাই ছিল তার সেরা সাফল্য। এবারের আসর শেষ করেছেন ৩৫তম হয়ে। যেখানে ৩ ঘণ্টা ৫০ দশমিক ০৮ মিনিট সময় নিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন পোল্যান্ডের দাভিদ টামালা। রুপা জিতেছেন জার্মানির ইয়োনাটান হিলবের্ট ও ব্রোঞ্জ জিতেছেন কানাডার ইভান ডানফি।

গার্সিয়ার মতোই অলিম্পিকে ইতি টানছে ৫০ কিলোমিটার হাঁটা ইভেন্ট। ভবিষ্যতে আর ইভেন্টটি না রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অলিম্পিক কমিটি। তাই অক্ষুণ্ন্নই থাকছে অলিম্পিকে সর্বোচ্চ ১০ বার অংশ নেওয়া কানাডার একুস্ট্রিয়ান জাম্পার ইয়ান মিলারের রেকর্ড।

অবশ্য সেই রেকর্ড ভাঙার কোনো ইচ্ছা ছিল না গার্সিয়ার। তিনি বলেন, ‘অলিম্পিক গেমস আলাদা এক অভিজ্ঞতা এবং অবশ্যই সবাই এর স্বাদ নিতে চায়। আমি সৌভাগ্যবান যে, এতোগুলো আসরে অংশ নিয়ে নিজেকে ঐতিহাসিক কিছুর অংশ মনে করি। এটা সবসময়ই আমার মনের মধ্যে থাকবে যে, আট বারের মধ্যে একবারও পদক জয়ের মঞ্চে দাঁড়াতে পারিনি।’
অ্যাথলেটিকস ছাড়াও রাজনীতিতে বেশ দক্ষ মানুষ গার্সিয়া। দুইবার স্পেনে কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। তার আটবারের অলিম্পিক অভিযানে ইনজুরি বাধা দিয়েছে অনেকবার। কিন্তু হাল ছাড়েননি তিনি, ঠিকই বের করে সমস্যার সমাধান। প্রতিকূলতাকে জয় করে ফিরেছেন। কিন্তু এবারই শেষ। অবসরের পর কোচিং করাবেন উঠতি অ্যাথলেটদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *