ইতালির প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে ডানপন্থি গিয়র্গিয়া মেলোনি

Share Now..


‘ফ্যাসিস্ট’ বললে তিনি গায়ে মাখেন না। ইউরোপীয় ইউনিয়নকে বলেন, ‘অযোগ্য’। প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর সব তোপ দাগেন হাসিমুখে। এভাবেই ইতালির প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে চলেছেন ডানপন্থিদের ভীষণ প্রিয় গিয়র্গিয়া মেলোনি। সেখা্নেই জমছে উপচে পড়া ভিড়। ক্যালিয়ারির সভা শুরুর অনেক আগে সভাস্থলে হাজির হয়ে যান মারসেডেস উসাই। গিয়র্গির দল ‘ব্রাদার্স অব ইতালি’ (ফ্রাটেলি ডি’ইতালিয়া)-র সদস্য এই তরুণী দেশের বাকি দলগুলোর ওপর ভীষণ বিরক্ত। জ্বালানি সংকট, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, মুদ্রাস্ফীতিসহ চলমান সব সংকটের জন্যই প্রতিপক্ষকে মেলোনি যেভাবে দায়ী করেন, ঠিক সেই সুরে কথা বলেন মারসেডেস। ২ সেপ্টেম্বর সার্ডিনিয়ার সবচেয়ে বড় শহর ক্যালিয়ারির সভার আগে তাকে বলতে শোনা যায়, ‘‘আমি মেলোনিকে বিশ্বাস করি! তার যে শক্তি তাতে অগাধ আস্থা আমার!”

সর্বশেষ জনমত জরিপে বেশ এগিয়েছিলেন ৪৬ বছর বয়সি মেলোনি। মার্সেডেস উসাইয়ের মতো অনেকেই এখন মনে করেন, এবার হয়ত প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী পেতে চলেছে ইতালি।

নির্বাচনি সভায় মেলোনি বারবার ঠোঁটে একটা চওড়া হাসি ঝুলিয়ে বলছেন, ক্ষমতায় গেলে দ্রব্যমূল্য, জ্বালানিসংকট ইত্যাদির কারণে মানুষ, বিশেষ করে ছাত্রসমাজ এবং ব্যবসায়ীরা যে কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন, তার অবসান হবে।

এ মুহূর্তে অবশ্য কৌশলে কিছুটা পরিবর্তন এনেছেন গিয়র্গি মেলোনি। কথা বলছেন একটু বুঝে-শুনে, সাবধানে। দলের অতীত ফ্যাসিজম-সংশ্লিষ্টতার কথা ভোলানোর চেষ্টায় সবসময় তৎপর তিনি। যদিও এখনো অনেক মুসোলিনি-সমর্থকই তার দলের সঙ্গে রয়েছে বলে বিশ্লেষকদের অভিযোগ।

আগের মতো ইতালিকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের করে নেয়ার কথাও আর বলেন না মেলোনি। তবে ইউরাপীয় ইউনিয়নের সমালোচনাও কম করেন না। ক্যালিয়ারির সভায় উপস্থিত সবাইকে ‘‘শুভসন্ধ্যা” বলেই মেলোনি শুরু করেছিলেন ইতালিতে মানুষের বর্তমান দুর্ভোগের জীবনের বর্ণনা। তারপর বামপন্থি, মধ্যপন্থিসহ সব প্রতিপক্ষের সমালোচনা চলল কিছুক্ষণ। তারপরই এলো ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রসঙ্গ এবং সেখানে মেলোনি আবার বললেন পুরোনো কথাটা। বললেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইউরোপের মানুষকে ভালো রাখতে অক্ষম, তারা অযোগ্য, নইলে এমন জ্বালানি সংকট, অর্থনৈতিক সংকট কখনোই দেখা দিতো না।

‘ওরা কি নারী-শিশুদের যুদ্ধ করার জন্য রেখে এসেছে?’

মেলোনির ‘ব্রাদার্স অব ইতালি’ দল ঘোর অভিবাসনবিরোধী। ইতালিতে যারা অভিবাসী হয়েছেন বা হতে চাইছেন, তাদের প্রসঙ্গে কথা বলতে গেলে ইউক্রেনীয় শরণার্থীদের বিষয়টি টেনে আনেন। তারপর সবার কাছে জানতে চান, ‘‘আপনারা কি ইউক্রেনীয় শরণার্থীদের দেখেছেন? দেখেছেন নারী এবং শিশুরা কেমন করে পালিয়ে চলে আসছে?” শ্রোতারা তখন বলে ওঠেন, ‘‘হ্যাঁ, দেখেছি।” মেলোনি আবার বলতে থাকেন, ‘‘কিন্তু ভূমধ্যসাগর দিয়ে যারা আসছেন, তাদের দেখুন। তাদের অধিকাংশই পুরুষ কেন? সব পুরুষ যদি চলে আসে, তাহলে এমন তো হতেই পারে যে তারা কোনো যুদ্ধের কারণে প্রাণ বাঁচাতে এখানে আসছেন না। না হলে তো বলতে হবে তারা সব নারী আর শিশুকে যুদ্ধ করার জন্য রেখে নিজে এখানে চলে এসেছেন। তেমন কিছু হয়েছে বলে তো আমার মনে হয় না।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.