ঝিকরগাছার পল্লীতে জমি ক্রয় করে বিপাকে অসহায় পরিবার : আদালতে নিষেধাজ্ঞার মামলা

Share Now..

আফজাল হোসেন চাঁদ : যশোরের ঝিকরগাছার পল্লীতে জমি ক্রয় করে বিপাকে অসহায় পরিবার। এলাকার মধ্যে কোন ভাবে মিমাংশা করতে না পেরে অবশেষে বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪/১৪৫ ধারার নিষেধাজ্ঞার মামলা দায়ের করেছেন উপজেলার ১নং গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের আটুলিয়া গ্রামের জামাত আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম। মামলার বিবাদী করা হয়েছে একই গ্রামের মৃত আতর আলীর ছেলে মতিয়ার রহমান ও আতিয়ার রহমান।
মামলার সূত্রে জানা যায়, ঝিকরগাছা থানার ৪নং আটলিয়া মৌজায় ১২৫৪ নং আরএস খং, ৫১৬৬ নং আরএস দাগে ৬৭শতক জমির মধ্যে উত্তর পূর্ব কোনের ৪শতক জমি বাদে বক্রী ৮৩ শতক জমির বিষয়ে বাদী শরিফুল ইসলাম বিগত ২৯/০৬/২০০৫ ইং তারিখে আরএস রেকর্ডীয় প্রজা হাজেরা বেগমের নিকট থেকে আরএস রেকর্ডমূলে সম্পাদিত ও রেজিস্ট্রিকৃত ৫০০২নং কবলা দলিলমূলে ক্রয় করে। খরিদাসূত্রে স্বত্ত্ববান ও দখিলকার হয়ে জমিতে মেহগনি, বাঁশঝাড়, সজনে গাছের বৃক্ষাদি রোপনে উপস্বত্ত্বাদি গ্রহণে, চাষাবাদে ফসলাদি উৎপাদন গ্রহনে সরকার সেরেস্তায় খাজনাদায়ে দাখিলাপ্রাপ্তে স্বত্ত্বদখলে থাকাকালে ২০ সেপ্টেম্বর সকাল অনুমান ১০টার সময় বাদীর নালিশী জমিতে দূর্দান্ত বিবাদীপক্ষ কতিপয় সন্ত্রাসী প্রকৃতির ব্যক্তিবর্গকে সঙ্গে নিয়ে নালিশী জমিস্থ বৃক্ষাদি কেটে নেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করলে বাদিপক্ষ স্বাক্ষীগণ সহ স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তিগণের সহযোগিতায় বিবাদীপক্ষের উক্তরুপ বেআইনী কার্য্য করা হতে বিরত রাখেন। তবে বিবাদীপক্ষ চলে যাবার কালে বাদীপক্ষকে শাসাইয়া বলেন, তাহারা অচিরেই অধিক সংখ্যক সন্ত্রাসী প্রকৃতির ব্যক্তিবর্গকে সঙ্গে নিয়ে নালিশের জমিতে এসে বৃক্ষাদি কেটে ফেলবে এবং উক্ত জমিতে গৃহাদি নির্মাণ করিবে। এমতাবস্থায় বাদীপক্ষ স্বপরিবারে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে এবং এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। বাদী কোন কুলকিনারা না পেয়ে বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪/১৪৫ ধারা অনুযায়ী প্রসেডিং ড্র করতঃ নিষেধাজ্ঞার আদেশ চান। বিজ্ঞ আদালতে পি-৯৪৫/২১ নং মামলায় বাদীর নালিশ আমলে নিয়ে উক্ত জমিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ১৭৪৫ নং স্মারকে ঝিকরগাছা থানার অফিসার ইনচার্জকে সরেজমিন তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদেশ দেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।
ঝিকরগাছা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বিজ্ঞ আদালত থেকে একটি নিষেধাজ্ঞার মামলার বিষয়ে আমার নিকট একটি আদেশ এসেছে। অবিলম্বে সরেজমিনে তদন্তপূর্বক বিজ্ঞ আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে। বর্তমানে আমাদের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.