ঝিনাইদহে নারী মেম্বরকে অশ্লিল ভাষায় কটুক্তি প্রতবাদ করায় পিটিয়ে জখম

Share Now..


স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ
ঝিনাইদহের কালীচরণপুর ইউনিয়নে তিনবারের নির্বাচিত সংরক্ষিত মহিলা ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য রহিমা বেগমকে পিটিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষরা। এ ঘটনার জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীরের সমর্থকরা দায়ী বলে রহিমা অভিযোগ করেন। এ সময় হামলাকারীরা তার গলার চেইন ও নগদ ৫০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেন। জানা গেছে, রহিমা বেগম একজন অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষ হিসেবে পরিচিত। তিনি ইউপি সদস্য হয়েও ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে আয়ার কাজ করেন। তার উপর এই হামলায় এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। রহিমা বেগম অভিযোগ করেন, তার বোন পুবালী ব্যাংক থেকে সোমবাদ দুপুরে ৫০ হাজার টাকা তুলে দেন। ঝিনাইদহের ব্যাংক থেকে টাকা তুলে নিয়ে তিনি বড়কামারকুন্ডু গ্রামের আলীমুদ্দীর মুদির দোকানে যান। এ সময় বড়কামারকুন্ডু গ্রামের আক্তার ডেকে নিয়ে অনুউচ্চরণযোগ্য অশালীন কথা বলেন। রহিমা এ কথার তীব্র প্রতিবাদ করলে আক্তার ও ঝন্টু তাকে কিল ঘুষি মেরে আহত করেন। তাদের আঘাতে রহিমা বেগম মাটিতে পড়ে গেলে আক্তার তার বুকের উপর পা উঠিয়ে দেয়। এতে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। আশপাশের দোকানদাররা ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতালে ভর্তির পর রহিমা দুইবার বমি করেন বলে তিনি নিজে জানান। অবস্থা বেগতিক দেখে চিকৎসকরা তাকে ফরিদপুর মেডিকেলে রেফার্ড করেন, তবে তিনি অর্থের অভাবে যাননি। এ বিষয়ে আক্তার ও ঝন্টু অভিযোগ করেন ওই নারী মেম্বরই প্রথমে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। তাকে কোন রকম মারধর করা হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.