নাদিয়া নাদিম: আফগান শরণার্থী থেকে প্রভাবশালী ফুটবলার ও চিকিৎসক

Share Now..

শরণার্থীরাও পর্যাপ্ত সুযোগ পেলে যে, বিশ্বের সবার সামনে অনুপ্রেরণার অপর নাম হতে পারে, তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত নাদিয়া নাদিম। তিনি একাধারে পেশাদার ফুটবলার ও সার্জন চিকিৎসক। ফুটবল মাঠে দাপিয়ে বেড়ানোর ফাঁকে ফাঁকে শেষ করেছেন পাঁচ বছরের চিকিৎসা কোর্স এমবিবিএস। খেলেছেন ডেনমার্ক জাতীয় নারী ফুটবল দল, ম্যানচেস্টার সিটি ও পিএসজিতে (প্যারিস সেইন্ট জার্মেই)। আর বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের কেনটাকির রেসিং লুইসভিল এফসির হয়ে খেলছেন। পাশাপাশি কথা বলতে পারেন মোট ১১টি ভাষায়।

১৯৮৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি আফগানিস্তানের হেরাত প্রদেশে জন্মগ্রহণ করেন নাদিয়া নাদিম। পরিবারে তার আরও চার বোন রয়েছে, ভাই নেই। বাবা-মা ও বোনদের সঙ্গেই সেখানে বেড়ে উঠতে থাকেন। তার বাবা আফগান ন্যাশনাল আর্মির একজন জেনারেল ছিলেন। ২০০০ সালে তালেবানরা

নিজের ওয়েবসাইটে নাদিয়া নাদিম বলেন, ‘আমি যখন ছোট ছিলাম, তখন একদিন হৃদয়বিদারক খবর পাই যে, তালেবানরা আমার বাবাকে হত্যা করেছে। এরপরে, আমার পরিবার আফগানিস্তান থেকে পালানোর সিদ্ধান্ত নেয়। কারণ, পরিবারের ৬ জন নারীর জন্য সেটা নিরাপদ জায়গা ছিল না।’
সিদ্ধান্ত মোতাবেক পাকিস্তান হয়ে ইউরোপে পাড়ি জমায় নাদিয়ার পরিবার। এই ফুটবলার বলেন, ‘লন্ডনে আমাদের কয়েকজন আত্মীয় ছিল, তাই আমরা সেখানে পালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলাম। সেই অনুযায়ী, জাল পাসপোর্ট নিয়ে আমরা পাকিস্তান হয়ে ইতালিতে আসি। সেখান থেকে আমি এবং আমার পুরো পরিবার একটি ট্রাকে চড়ে বসি। ভাবছিলাম যে আমরা লন্ডনের দিকে যাচ্ছি। কয়েকদিন পর, আমরা সবাই বিগ বেন দেখার আশায় ট্রাকে ঘুরলাম। কিন্তু দেখতে পাইনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.