বিদেশি মুদ্রার ব্যবহার নিষিদ্ধ আফগানিস্তানে

Share Now..

আফগানিস্তানে বিদেশি মুদ্রা ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ ক্ষমতাসীন তালেবান। গতকাল মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তারা। এর ফলে খাদের কিনারে থাকা আফগান অর্থনীতি আরও সংকটের সম্মুখীন হতে পারে। এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

গত আগস্ট মাসের মাঝামাঝি সময়ে তালেবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়। এরপরেই বিশ্বের বেশিরভাগ দেশের দূতাবাসের পাশাপাশি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাও কাবুলে তাদের কার্যালয় বন্ধ করে দেয়। বন্ধ হয়ে যায় বিদেশি সহায়তাও। এমনকি বিদেশে থাকা আফগানিস্তানের রিজার্ভও আটকে দেয় যুক্তরাষ্ট্র। এমন পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানের মুদ্রার মান কেবলই কমেছে।

টালমাটাল এই পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানের ব্যাংকগুলোতে নগদ অর্থের সংকটও দেখা দিয়েছে। এছাড়া বিশ্বের কোনো দেশই এখন পর্যন্ত তালেবানকে দেশটির বৈধ সরকার হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। এ কারণেআফগানিস্তানের অর্থনৈতিক অবস্থা কেবলই অবনতির দিকে যাচ্ছে।

ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, সংকটজনক এই পরিস্থিতিতে দেশটির ভেতরেই অনেক স্থানে মার্কিন ডলারে লেনদেন করে থাকেন আফগান নাগরিকরা। এছাড়া পাকিস্তান সীমান্তবর্তী আফগান ভূখণ্ডের দক্ষিণাঞ্চলের অনেক জায়গায় বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে পাকিস্তানি রুপিও ব্যবহার করছে মানুষ।

তবে আফগানিস্তানের অভ্যন্তরে বিদেশি যেকোনো মুদ্রায় লেনদেন বা ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে দেশটির ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী তালেবান। গতকাল মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে এই ঘোষণা দিয়েছেন তালেবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ। এমনকি অভ্যন্তরীণ ব্যবসায় এবং এ সংক্রান্ত কাজে বিদেশী মুদ্রা ব্যবহারকারীকে শান্তির আওতায় আনা হবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.