১৫ আগস্ট হত্যা-ষড়যন্ত্র উদঘাটনে স্বাধীন কমিশন গঠন করা উচিত: আরেফিন সিদ্দিক

Share Now..


ভবিষ্যতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের মতো ষড়যন্ত্র ঠেকাতে, সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রটির নেপথ্যে কারা ছিল-তা উদঘাটনে বিশদ গবেষণা ও তদন্তের জন্য একটি স্বাধীন কমিশন গঠনের পরামর্শ দিয়েছেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে শোকের মাসের ওপর এক সাক্ষাৎকার প্রদানকালে তিনি বলেন, ‘(১৫আগস্টের) গোটা ষড়যন্ত্রেও স্বরূপ উদঘাটনে একটি সত্য অনুসন্ধানী কমিশন গঠন অত্যন্ত জরুরি।’

আরেফিন বলেন, এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে হত্যার ষড়যন্ত্রের পেছনে কারা ছিল, তা উদঘাটন করতে বাংলাদেশ অনেকাংশেই এ যাবত প্রকাশিত বিদেশি গোপন তথ্যের ওপরেই নির্ভর করা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য সিদ্দিক বলেন, ‘এখন আমাদের এই ষড়যন্ত্রের আদ্যোপান্ত উদঘাটনে স্থানীয় সূত্র অনুসন্ধানের পাশাপাশি, এ পর্যন্ত এই হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে প্রাপ্ত বিদেশি তথ্য যাচাই ও একত্র করে হত্যাযজ্ঞের উপাখ্যান উদঘাটন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ষড়যন্ত্রটি কয়েকটি ধাপে দীর্ঘদিন ধরে করা হয় এবং যদি আমরা প্রতিটি ধাপের দিকে আলোকপাত করি, তবে সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রটি সম্পর্কে জানতে পারব যে-কীভাবে একটি ঘটনার সঙ্গে আরেকটি ঘটনা সম্পর্কযুক্ত।’

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)-এর পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান সিদ্দিকি বলেন, ‘এই ষড়যন্ত্রের কয়েকজন নেপথ্য নায়ক বিদেশের মাটিতে বসে পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে যোগ দিয়ে থাকতে পারে এবং অন্যেরা পর্দার আড়াল থেকে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার জন্য ঘাতক পাঠিয়ে থাকতে পারে। এই ষড়যন্ত্রের সাথে আমেরিকার সিআইএ-ও জড়িত থাকতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘ইতিহাসের স্বাথের্ই তাদের মুখোশ উন্মোচন করা উচিত।’

আইন, বিচার ও পার্লামেন্টবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এর আগে বলেছিলেন, ‘সরকার এই হত্যা-ষড়যন্ত্রের নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ উন্মোচনের জন্য একটি কমিশন গঠনে কাজ করছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.